নয়া ক্রিপ্টোকারেন্সি বিল! বড় সিদ্ধান্ত কেন্দ্রীয় সরকারের

TodayPostDecember , 20211min200

[ad_1]

নিজস্ব প্রতিনিধি, দিল্লি – দেশের ক্রিপ্টোকারেন্সি নিষিদ্ধ হতে চলেছে নাকি নতুন বিলের মাধ্যমে তাতে রেস্ট্রিকশন আসতে চলেছে তা নিয়ে দ্বন্দ্ব রয়েছে। এরই মধ্যে মঙ্গলবার শীতকালীন অধিবেশনের দ্বিতীয় দিনে, রাজ্যসভায় ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে অবস্থান স্পষ্ট করল কেন্দ্রীয় সরকার।

অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন অর্থমন্ত্রী সংসদের উচ্চকক্ষে জানিয়েছেন, ‘সরকার দ্রুতই ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে বিল পেশ করতে চলেছে। ক্রিপ্টোকারেন্সির রেগুলেশন নিয়ে সরকারের তরফে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে’।

তিনি আরও জানিয়েছেন, ‘ক্রিপ্টোকারেন্সি ঝুঁকিপূর্ণ ক্ষেত্র আর এটির কোনও সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রক ফ্রেমওয়ার্ক নেই। তবে ডিজিটাল মুদ্রার বিজ্ঞাপন বন্ধ করা নিয়ে কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি সরকারের তরফে। শুধুমাত্র আরবিআই আর সেবির মাধ্যমে সচেতনতার বার্তা দিতে পদক্ষেপ করা হয়েছে। সরকার দ্রুতই ক্রিপ্টোকারেন্সির বিল পেশ করবে’।

ক্রিপ্টোর বিজ্ঞাপন সম্পর্কিত প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী জানিয়েছেন, ‘এখানে ASCI রয়েছে, যারা বিজ্ঞাপন নিয়ন্ত্রণ করে। ক্রিপ্টোকারেন্সির সমস্ত নিয়ম পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে, যাতে ঠিক করা যায় এর বিজ্ঞাপন কীভাবে করা যায়’।

তিনি আরও জানান, গতবার এই বিল উত্থাপন করা যায়নি কারণ এই বিলে কিছু পরিবর্তন করে পরীক্ষা করে দেখার ছিল। এই ব্যাপারে খুব দ্রুতগতিতে অনেক কিছুই সামনে এসেছে। অর্থমন্ত্রী জানিয়েছেন, এর উদ্দেশ্য ছিল ক্রিপ্টোকারেন্সির বিল আরও উন্নত করা।

অর্থমন্ত্রী জানান, সরকার সংসদে বিল আনার দোড়গোড়ায় রয়েছে। আগের বিলটিতে আবারও নতুন করে কিছু কাজ করা হয়েছে। আসন্ন বিলটি সম্পূর্ণ নতুন একটি বিল। ক্রিপ্টোকারেন্সি থেকে ভুল কাজের যে ঝুঁকি রয়েছে, সরকার কাছ দেখে তার তত্ত্বাবধান করছে।

প্রসঙ্গত, বিগত কয়েকদিন আগেই গুঞ্জন শোনা গিয়েছিল, সমস্ত প্রাইভেট ক্রিপ্টোকারেন্সি নিষিদ্ধ করা হবে। ভারতে ক্রিপ্টো নিষেধাজ্ঞার পরে, বিনিয়োগকারীদের কাছে দুটি প্রাথমিক বিকল্প থাকবে। বিনিয়োগকারীরা তাদের মুদ্রা বিক্রি করতে পারে বা তারা মুদ্রা বিনিময়ের ওয়ালেটে ক্রিপ্টো সম্পদ রাখতে পারে। যারা নিষেধাজ্ঞার পরেও ডিজিটাল মুদ্রা রাখতে চান তারা তাদের ক্রিপ্টো সম্পদ স্ব-হেফাজতে ওয়ালেটে রাখতে পারেন।

[ad_2]